মোহাম্মদ হাবীব উল্যাহ্
হাজীগঞ্জে ভাষা সৈনিক ও বীরমুক্তিযোদ্ধা বিএম কলিম উল্যাহ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে গত বছরের মতো এবারো শতাধীক পরিবারের মাঝে উপহার সরূপ জনপ্রতি প্রায় ৩২ কেজি করে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার দিনব্যাপী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে কর্মহীন ও পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে অসহায় ও দুস্থদের বাড়িতে এই খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।
ফাউন্ডেশনের উদ্যোক্তা বি.এম ফুয়াদ আহসান, বি.এম মিরাজ মহসিন ও সাজ্জাদ রশিদ ডেভিডের অর্থায়নে এবং উপদেষ্টা বি.এম আহসান কলিম এর দিক-নির্দেশনায় জনপ্রতি ২০ কেজি চাউল, ১ কেজি সয়াবিল তেল, ২ কেজি চিনি, ২ কেজি মুশুর ডাল, ৩ কেজি আলু, ২ কেজি পেয়াজ, ২’শ গ্রাম গুড়ো দুধ, ৫’শ গ্রাম সেমাই, ১ কেজি লবন ও ১টি করে হুইল সাবান সুবিধাভোগিদের বাড়ীতে পৌঁছে দেয়া হয়।
এর আগে গত বছরেও তিন শতাধীক অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এছাড়াও করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব মোকাবেলায় হাজীগঞ্জ পৌরসভা, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স (চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী), পুলিশ, সাংবাদিক এবং করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গে মৃতদের দাফনে স্বেচ্ছাসেবক কমিটির সদস্যদের মাঝে সুরক্ষা সামগ্রী (মাস্ক, গ্লাভস, ফেস শ্লিড ও পিপিই) উপহার দেয়া হয়।
এ বিষয়ে উদ্যোক্তা সাজ্জাদ রশিদ ডেভিড বলেন, ভাষা সৈনিক ও বীরমুক্তিযোদ্ধা বিএম কলিম উল্যাহ চাঁদপুরের সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি ছিলেন। তাঁর নামের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আমরা এই সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছি। সংগঠনের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হল, উপজেলায় বসবাসরত অসহায়, দুস্থ ও গরীবদের স্বাস্থ্য, শিক্ষা এবং আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন এবং যে কোন মহামারি ও প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় সংশ্লিষ্ট কর্মরতদের সহযোগিতা করা।
উপদেষ্টা বি.এম আহসান কলিম জানান, যেকোন দুর্যোগে ভাষা সৈনিক ও বীরমুক্তিযোদ্ধা বিএম কলিম উল্যাহ্ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে এবং আমাদের সামর্থ অনুযায়ী ও নিজস্ব অর্থায়নে উপহার সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত থাকবে।
উল্লেখ্য, বিএম কলিম উল্যাহ একজন ভাষা সৈনিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা। তিনি একজন সংগঠক ও শিক্ষাবীদ। উপজেলায় হাজীগঞ্জ মডেল সরকারি কলেজ, হাজীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ, রান্ধুনীমূড়া উচ্চ বিদ্যালয়, হাজীগঞ্জ জামিয়া আহমাদীয়া কাওমী মাদরাসাসহ বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সৃষ্টিতে তাঁর প্রত্যক্ষ অবদান রয়েছে। তাঁর পরিবারের সদস্যদের উদ্যোগে ও অর্থায়নে বিএম কলিম উল্যাহ ফাউন্ডেশন গঠন করা হয়।

Share This post