• সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন

হাজীগঞ্জ সিহিরচোঁ মধ্যপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্ঠিত

আপডেটঃ : রবিবার, ৬ অক্টোবর, ২০১৯

স্টাফ রিপোর্টার :

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার ৩নং কালচোঁ উত্তর ইউনিয়নের ১২৯ নং সিহিরচোঁ মধ্যপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মঙ্গলবার দুপুরে মা ও অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

শিক্ষার্থী মাত্র ৫৮ জন। উত্তরণের জন্য মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত, শতভাগ বাংলা ইংরেজি পঠন দক্ষতা অর্জন, ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতি নিশ্চিত ও ছাত্র-ছাত্রীদের ভর্তি বৃদ্ধিকরণের প্রসঙ্গেএই মা ও অভিভাবক সমাবেশ করা হয়েছে।

কেন শিক্ষার্থী কমছে এ প্রসঙ্গে অভিভাবকদের পক্ষ থেকে আবুল খায়ের বলেন, এলাকায় দুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। একটি নূরানী মাদ্রাসা ও একটি ফাজিল মাদ্রাসা রয়েছে। শিক্ষার্থীরা অন্যান্য জায়গায় ভর্তি হয়। ফলে এখানে শিক্ষার্থী কমছে।

প্রধান অতিথি জাহাঙ্গীর আলম বুলবুল বলেন, এভাবে শিক্ষার্থী কমতে থাকলে স্কুল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। আমরা একটি জরিপে দেখেছি, বিদ্যালয়ের ক্যাচমেন্ট এরিয়া ১০৬ জন ছাত্র ছিল। তার মধ্যে ৫৮ জন বিদ্যালয়টিতে ভর্তি হয়। বাকি যারা ভর্তি হয়নি তার কারণ খুঁজে বের করতে হবে। এভাবে চলতে থাকলে বিদ্যালয়টি হুমকি স্বরূপ হয়ে পড়বে।
তিনি আরো বলেন, অভিভাবকদের জানতে হবে কেন তাদের শিশুকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করানো হবে। বর্তমান সরকার শিক্ষাবান্ধব সরকার। উপবৃত্তির টাকা শুধু স্কুলে দেওয়া হয়। প্রতিটি স্কুলে এখন অত্যাধুনিক উপকরণ। আগামী বছর থেকে ক্যাচমেন্ট এরিয়া সবাইকে ভর্তি করাতে হবে। বিদ্যালয়ে নতুন কমিটিকে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী বৃদ্ধি করার দায়িত্ব নিতে হবে।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্যে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার মোঃ আফতাবুল ইসলাম বলেন, এক চালা একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থাকলে মোমবাতির আলোর মতো প্রজ্জ্বলন সৃষ্টি হয়। সবাইকে সম্মিলিতভাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান উন্নয়নে কাজ করতে হবে।

প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল হক মুজিব বলেন, স্কুল নিয়ে সমালোচনা করবেন না। পথ দেখান। শিক্ষার্থী কম হলে প্রাণচঞ্চলতা থাকে না। প্রত্যেকে একজন করে শিক্ষার্থী ভর্তি করান।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল খায়ের খান বলেন, প্রতিবছর হোম ভিজিট করা হয়। উঠান বৈঠক করা হয়। শিক্ষার্থী বৃদ্ধির লক্ষ্যে পরিচালনা পর্ষদসহ শিক্ষকরা কাজ করছে।
ইউপি চেয়ারম্যান মানিক হসেন প্রধানিয়া বলেন, যারা সমালোচনা করছেন তারা বিদ্যালয়ের কমিটিতে আসতে চান। বিদ্যালয়ের জন্য কিছু করতে চাইলে আসেন। বিদ্যালয়ের মান বৃদ্ধি করেন। কোন সমস্যা নাই।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ কামাল হোসেন মজুমদার বলেন, প্রতি তিন মাস পর পর মা সমাবেশ করা প্রয়োজন।
সমাবেশে বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ডা. আব্দুল হাই প্রধান বলেন, বিদ্যালয়ের উন্নয়নে কাজ করেছি। কখনো কিছু নেওয়ার আশা করিনি। শিক্ষার্থী বৃদ্ধির জন্য সবার সহযোগিতা কামনা করছি।
সমাবেশে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমান পলাশ এর উপস্থাপনা অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন সাবেক ইউপি সদস্য আবু তাহের প্রধানিয়া, সমাজসেবক লোকমান হোসেন, ইউপি সদস্য সিদ্দিকুর রহমান চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সদস্য আব্দুল মজিদ সরদার, আসমা আক্তার, আব্দুর রহমান, আনোয়ারা বেগম, বিবি হাওয়া ও আব্দুল হালিম মিয়াজী সহ দুই শতাধিক এলাকাবাসী।


এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ

ফেসবুকে মানব খবর…