অমরেশ দত্ত জয়ঃ
চাঁদপুর সদরের আশিকাটি ইউনিয়নে ত্রাণের দাবীতে ইউপি মেম্বার ও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন এলাকাবাসী। গতকাল ৮নং ওয়ার্ডের পাইকগাস্থা ছেলামত খান বাড়ী এলাকায় এই বিক্ষোভ করা হয়।এ বিক্ষোভ প্রসঙ্গে স্থানীয় জাকির হোসেন,সামছুল গাজী,কল্পনা বেগম,জয়গুনা বেগম,খুকি বেগম,আনোয়ারা বেগম,জোসনা বেগম,পিয়ারা বেগম,ছিদ্দিক গাজী,শাহানাজ বেগমসহ স্থানীয় শতাধিক এলাকাবাসী জানান,আমরা খুব কষ্টে আছি।আমরা সরকারি নির্দেশনা মেনে লকডাউনে বাড়ীতেই অবস্থান করছি।এই কর্মহীন সময়ে আমাদের কোন প্রকার ত্রাণ সহযোগিতা করেনি স্থানীয় মেম্বার-চেয়ারম্যান।তারা আরো বলেন,সরকার,প্রশাসন,এমপি সহ সুধীমহলের এতো বরাদ্দ ইউনিয়নে এসেছে।যা কি না ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিল্লাল মাষ্টার ও ওই ইউপি সদস্য খোকন আত্ত্বীয় স্বজন ও নিজেদের মধ্যে ভাগ বাটোয়ারা করে নিয়ে গেছে। আর আমরা অসহায় জনগোষ্ঠী এই ত্রাণ সহযোগিতা থেকে বঞ্চিত হলাম।মূলত ওই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিল্লাল মাষ্টার পুরো ইউনিয়নকে দূর্ণীতির আখড়া বানিয়ে ফেলেছেন।সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পে তিনি অনিয়ম করে দুর্ভোগে ফেলেন অসহায় ইউনিয়নবাসীকে। তাই আমাদের অসহায়ত্ব লাঘবে আমরা আমাদের শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি আপার হস্তক্ষেপ কামনা করছি। ২৮ শে মে (বৃহস্পতিবার) এ ব্যপারে আশিকাটি ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ আলমগীর হোসেন খোকন সাংবাদিকদের জানান, আমি সবাইকে ত্রাণ দেওয়ার চেষ্টা করছি। অনেকের ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করেছি।একটু ধৈর্য ধরলে পর্যায়ক্রমে সব অসহায়কে ত্রাণ দেওয়া হবে।অন্যসব অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা।এই বলে তিনি অসুস্থ জানিয়ে আর কোন কথা বলতে রাজি হননি।এ ব্যপারে আশিকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ বিল্লাল হোসেন পাটওয়ারী সাংবাদিকদের জানান,৮নং ওয়ার্ডের পাইগাস্থা এলাকার ওই জায়গাটি মূলত বিএনপি অধ্যূষিত এলাকা।ওরা বিভিন্ন সময়ে আমার কর্মকান্ড নিয়ে গুজব রটায়।তবে যারা ত্রাণ পায়নি বলে বিক্ষোভ করলো।তাদের নামের তালিকা সংগ্রহ করে ওয়ার্ড মেম্বারের মাধ্যমে ত্রাণ পাঠিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করবো।এদিকে আশ্বাস নয় কথার দ্রুত বাস্তবায়ন ও ত্রাণ সহযোগিতা চান বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী ও সুধীমহল।

Share This post