• শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০১:৩৬ অপরাহ্ন

চাঁদপুর সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের বাসা থেকে ২টন ত্রাণের চাল উদ্ধার

আপডেটঃ : বৃহস্পতিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২০

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

 

চাঁদপুর সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানার শহরের বাসা থেকে ২টন (৩০ কেজি ওজনের ৬৭ বস্তা) ত্রাণের (জিআর) বরাদ্দের চাল উদ্ধার করেছে প্রশাসন।

 

বুধবার (১৫ এপ্রিল) দুপুর আড়াইটায় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কানিজ ফাতেমার তত্ত্বাবধানে পিকআপ ভ্যান দিয়ে চালগুলো উদ্ধার করে সদর উপজেলার গোডাউনে নিয়ে রাখা হয়।এর আগে মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে চালগুলো চাঁদপুর সিএসডি গোডাউন থেকে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানা শহরের ট্রাকরোড এলাকার পালপাড়াস্থ তার নিজ বাসায় এনে রাখেন।

 

সরকারি ত্রাণের চাল মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নিজ বাসায় এনে রাখার বিষয়টি বিভিন্ন সূত্রে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, সরকারি গোয়েন্দা সংস্থা জানতে পেরে যায়। এরপর ওই চালগুলো তার বাসা থেকে নিয়ে আসার জন্য কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়। চালগুলো ট্রাকে উঠিয়ে উপজেলায় নেয়ার প্রস্তুতিকালে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা সত্যতা যাচাইয়ে অবস্থায় নেয়।

 

খবর পেয়ে চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক সানজিদ ঘটনাস্থলে আসেন এবং ওই বাসায় ত্রাণের চালের মজুদের বিষয়ে খোঁজ খবর নেন।চাঁদপুর সদর উপজেলার একজন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জানান,সরকারি ত্রাণ কিংবা কোন বরাদ্দের চালই নিজ বাড়ীতে নিয়ে রাখার নিয়ম নেই। আমাদের যত বরাদ্দ আসে আমরা এগুলো গোডাউন থেকে সরাসরি ইউনিয়ন পরিষদের গোডাউনে নিয়ে রাখি।

 

অনেক সময় সরাসরি বিতরণকৃত এলাকায় নিয়ে তালিকাভুক্ত লোকাদের হাতে তুলে দেই।এ বিষয়টি দুঃখজনক। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানা ঘটনাস্থলে আসা সাংবাদিকদেরকে বলেন, জিআর বরাদ্দের চাল ইউনিয়নের গরীবদের মাঝে বিতরণের কথা। ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় যেহেতু চেয়ারম্যানরা চাল ইতিপূর্বে বিতরণ করেছেন।তাই আমি চিন্তা করেছি ইউনিয়নে না দিয়ে এই চালগুলো আমি আমার বাসার আশাপাশে শহরের লোকদের মাঝে দিবো।

 

সেই সুবিধার্থে বাসায় এনে রেখেছিলাম। চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, গোপন সংবাদ পেয়ে আমরা তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহন করেছি।সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা কে নির্দেশ দিয়েছি।তার তত্ত্বাবধানে যেন চালগুলো ওই বাসা থেকে উদ্ধার করে উপজেলার গোডাউনে রেখে দেয়। আর তিনি(ইউএনও) গোডাউনে আনার ব্যবস্থাও করেছেন। যদি এই চাল গরীবদের দিতে হয় তবে উপজেলা পরিষদ থেকেই দিতে হবে।


এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ

ফেসবুকে মানব খবর…