• সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:২১ পূর্বাহ্ন

বঙ্গবন্ধু সরকার জাতীয় রাতকানা প্রতিরোধ প্রকল্প শুরু করেন ঃ নুরুল আমিন রুহুল এমপি

আপডেটঃ : শনিবার, ১১ জানুয়ারি, ২০২০

 

মনিরুল ইসলাম মনির :
সারাদেশের ন্যায় চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় একযোগে শুরু হয়েছে শিশুদের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানোর ক্যাম্পেইন। সকালে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন চাঁদপুর-২ (মতলব উত্তর-মতলব দক্ষিণ) আসনের সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট আলহাজ্ব নুরুল আমিন রুহুল।
এ সময় তিনি বলেন, ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানোর ফলে শিশু যে শুধু রাতকানা রোগ থেকে রক্ষা পায় তা নয়, আরো বহুবিধ উপকার হয়। এ ক্যাপসুল শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে; ডায়রিয়া,আমাশয়, কলেরা, নিউমোনিয়া, টাইফয়েডসহ অন্যান্য সংক্রামক রোগে ঘন ঘন আক্রান্ত হওয়া রোধ করে, যা শিশুকে স্বাভাবিকভাবে বেড়ে উঠতে সহায়তা করে। ভিটামিন ‘এ’ শিশুর ডায়রিয়ার ব্যাপ্তিকাল হ্রাস করে এবং হামজনিত জটিলতা হ্রাস করে।
তিনি বলেন, ১৯৭২ সালে এক গবেষণায় দেখা যায়, ৫ বছরের কম বয়সী শিশুদের মধ্যে প্রায় ৪.১% শিশু রাতকানা রোগে আক্রান্ত। ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধু সরকার জাতীয় রাতকানা প্রতিরোধ প্রকল্প শুরু করেন। এর অংশ হিসেবে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হয়। জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো অব্যাহত রাখার ফলে বর্তমানে ভিটামিন ‘এ’ এর অভাবজনিত রাতকানা রোগের হার শতকরা ১ ভাগের নিচে রয়েছে।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুুক্তিযোদ্ধা এমএ কুদ্দুস, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এএম জহিরুল হায়াত, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুসরাত জাহান মিথেন, ভাইস চেয়ারম্যান মোতাহের হোসেন খান সুফল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহীনা আক্তার, বিভিন্ন বিভাগীয় কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ।
শনিবার (১১ জানুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে এ ক্যাম্পেইন। ৬ মাস বয়স থেকে ৫ বছর বয়সী শিশুদের নীল রঙের ৪ হাজার ৫৩৩ জন এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী ৩১ হাজার ৩৮৫ জন শিশুকে লাল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো টার্গেট নিয়ে দিন ব্যাপী ৩৬০টি স্থায়ী কেন্দ্র, ১টি অতিরিক্ত কেন্দ্র, ছেংগারচর বাজার ও সুজাতপুর বাজারে ২টি ভ্রাম্যমান কেন্দ্রে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হয়।


এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ

ফেসবুকে মানব খবর…