• রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২২ পূর্বাহ্ন

চাঁদপুরকে যা দিতে পেরেছি তার চেয়ে বেশি নিয়ে যাচ্ছি : বিদায়ী পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির

আপডেটঃ : শনিবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

স্টাফ রিপোর্টার :

পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পদোন্নতি ও বদলিজনিত কারণে তাঁকে বিদায় সংবর্ধনা প্রদান করেছে চাঁদপুর জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটি।  ৬ সেপ্টেম্বর বিকেলে চাঁদপুর রোটারী ভবনে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের জেলা, উপজেলা ও পৌরসভা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের  উপস্থিতিতে এ বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত অতিথি বিদায়ী পুলিশ সুপার, সদ্য পদোন্নতিপ্রাপ্ত ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি জিহাদুল কবির পিপিএম বলেন, চাঁদপুরকে যা দিতে পেরেছি তার চেয়ে বেশি  নিয়ে যাচ্ছি। চাঁদপুরে দায়িত্ব নেয়ার পর আমি পুলিশে সাহসিকতার সর্বোচ্চ পুরস্কার বিপিএম পদক পেয়েছি এবং ঢাকা রেঞ্জে অতিরিক্ত ডিআইজি হিসেবে পদোন্নতিসহ অনেক কিছু পেয়েছি। তবে যা দিতে পারিনি তা হলো আমার ব্যর্থতা। আপনারা সেটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দোখবেন।

চাঁদপুরের কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম সারাদেশের জন্যে অনুকরণীয় মন্তব্য করে তিনি কমিউনিটি পুলিশিংয়ের নতুন কমিটি প্রসঙ্গে বলেন, বর্তমানে যে কমিটি গঠন করা হয়েছে তা যাচাই বাছাই করে করা হয়েছে। এর মাঝে যদি কোনো ভুল-ত্রুটি হয় তাহলে তা পরিবর্তন করা হতে পারে। আমরা জনবান্ধব পুলিশিং চাই, আর এজন্যে প্রয়োজন সকলের সহযোগিতা।

কমিউনিটি পুলিশিং চাঁদপুর সদরের ১৫ অঞ্চলকে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, যদি সেটি করা যায় তাহলে পুলিশিং কার্যক্রম পরিচালনা অনেক সহজ হবে এবং অপরাধ প্রবণতাও কমে যাবে। চাঁদপুর পৌর এলাকায় ৬০টি সিসি ক্যামেরা স্থাপনকে মডেল হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, যদি সকল উপজেলায় এ কার্যক্রম শুরু করা যায় তাহলে কমিউনিটি পুলিশিংয়েরই সুনাম বৃদ্ধি পাবে। তিনি কমিউনিটি পুলিশিংয়ের আঞ্চলিক কার্যক্রম ও থানা পুলিশের কার্যক্রমে যাতে মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস বৃদ্ধি পায় সেদিকে নজর দেওয়ার উপর গুরুত্বারোপ করেন।

প্রতিদিনই পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে মানুষের উপস্থিতি বৃদ্ধি পাচ্ছে। তা ভালো লক্ষণ হতে পারে না। মানুষ যদি তাদের সমস্যার সমাধান কমিউনিটি পুলিশিং অঞ্চলে বা থানায় সমাধান করতে পারতো, তাহলে তারা নিশ্চয়ই পুলিশ সুপারের কাছে ভিড় জমাতেন না। এ বিষয়গুলো আমাদেরকে ভেবে দেখতে হবে।

চাঁদপুরকে পুলিশিং করার সহজ ক্ষেত্র আখ্যায়িত করে এখানকার মানুষের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, চাঁদপুরের মানুষ ভালো মানুষকে সম্মান দিতে পারেন বলেই এ জেলার মানুষ বেশি বেশি সম্মানিত হচ্ছেন। এজেলার মানুষ আইজিপি, সেনাপ্রধান, দুদক প্রধানসহ বহু গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন হয়েছেন। তিনি চাঁদপুরের মানুষকে তার কর্মস্থলে যাওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়ে বলেন, আপনারা আমার কর্মস্থলে আসলে খুশি হবো।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমম্বয় কমিটির প্রধান সমন্বয়ক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পদোন্নতিপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার) মিজানুর রহমান এবং জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমম্বয় কমিটির উপদেষ্টা ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল।

জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমম্বয় কমিটির সভাপতি ডাঃ এস এম সহিদ উল্লাহর সভাপ্রধানে ও জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী শাহাদাতের সঞ্চালনায় সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমম্বয় কমিটির সহ-সভাপতি ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়া। অন্যানোর মাঝে বক্তব্য রাখেন জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমম্বয় কমিটির উপদেষ্টা স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী, চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাসিম উদ্দিন, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মণ চন্দ্র সূত্রধর, পৌর মহিলা কাউন্সিলর শাহনাজ আলমগীর, শাহরাস্তি উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটির সভাপতি এম এ আউয়াল, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডঃ ইলিয়াছ মিন্টু, সদর উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটির সভাপতি সালাউদ্দিন জিন্নাহ, হাজীগঞ্জ উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমম্বয় কমিটির সভাপতি আলী আশ্রাফ দুলাল ও চাঁদপুর পৌর কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ জামাল হোসেন। অনুষ্ঠানে জেলা কমিউনিটি পুলিশিং সমন্বয় কমিটির সভাপতি ডাঃ এস এম সহিদ উল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক সুফী খায়রুল আলম খোকনসহ কমিটির নেতৃবৃন্দ বিদায়ী পুলিশ সুপারকে ক্রেস্ট প্রদান করেন এবং উপজেলা ও পৌর কমিটির নেতৃবৃন্দ ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান করেন।

 


এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ

ফেসবুকে মানব খবর…