মানবখবর ডেস্ক:

নানা ধরনের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েও শেষ রক্ষা হয়নি। দেশে করোনা ভাইরাসের ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট (ধরন) শনাক্ত হয়েছে। যশোরে কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারত ফেরত ৮ জনকে করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এদের মধ্যে ছয় জন করোনা শনাক্ত হয়েছে। ছয় জনের শরীরেই করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের সঙ্গে আংশিক মিল রয়েছে। তাদের মধ্যে দুই জনের ডাবল মিউট্যান্ট নিশ্চিত।

শনিবার ( ৮ মে) এ তথ্য জানিয়েছে রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)।

ভারতীয় করোনা ব্যাপকহারে ছড়িয়ে পড়ায় গত ২৬ এপ্রিল ভারতের সঙ্গে সীমান্ত যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় সরকার। তবে এই সময়ের মধ্যে সব স্থলবন্দর চালু রয়েছে। শুধু যারা ভারতে গিয়ে আটকা পড়েছেন তাদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন থাকা বাধ্যতামূলকের শর্তে দেশে ফেরার অনুমতি মিলছে।

ভারতের আইইসিএমআরের গবেষণা বলছে, বাধা না থাকলে করোনারি ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত একজন ব্যক্তি ৩০ দিনে ৪০৬ জনকে সংক্রমিত করে।

দেশে ভারতের ভ্যারিয়েন্ট ঢুকে পরলে যে পরিস্থিতি হবে ভয়াবহ এবং তা যে সামাল দেওয়া যাবে না- এ বিষয়ে বেশ কয়েকবারই সতর্ক করেছেন খোদ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। আর তাই সতর্ক হবার পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথাও বলেছেন তিনি।

এদিকে, শুক্রবার পর্যন্ত করোনায় দেশে মোট মৃত্যু হয়েছে ১১ হাজার ৮৩৩ জনের। একই সময়ে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৬৮২ জন রোগী। এতে মোট শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৭ লাখ ৭০ হাজার ৮৪২ জনে।

অন্যদিকে, শনিবার ভারতে মহামারী করোনা ভাইরাসে এক দিনে প্রথমবারের মতো চার হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যুর নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে। ভারতের সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিড-১৯ এ নতুন করে আরো ৪ হাজার ১৮৭ জন প্রাণ হারিয়েছে।

এনিয়ে দেশটিতে মহামারীর শুরু থেকে এ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে মোট ২ লাখ ৩৮ হাজার ২৭০ জনে দাঁড়াল। এছাড়া একদিনে ভারতে নতুন করে আরো ৪ লাখ ১ হাজার ৭৮ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। সর্বমোট দেশটিতে এ ভাইরাসে সনাক্তের সংখ্যা বেড়ে প্রায় ২ কোটি ১৯ লাখে দাঁড়ালো।

যে কোনো ভয়াবহ পরিস্থিতির জন্য সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

Share This post