গাজী মমিন, ফরিদগঞ্জ:
চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ পৌর এলাকার ইজি বাইক ও ব্যাটারী চালিত রিক্সা চালক এবং শ্রমিকরা সোমবার ৪ অক্টোবর সকালে উপজেলা পরিষদের সামনে ৫ দফা দাবীর আন্দোলন নিয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে। বিক্ষোভ মিছিলের পূর্বে মানববন্ধনে প্রায় দুইশতাধিক চালক ও শ্রমিক অংশ নেয়। মানববন্ধনে সংগ্রাম পরিষদের জেলা নেতা কমরেড শাহজাহান তালুকদার ও স্থানীয় নেতা কমরেড হারুনুর রশীদ ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। এই সময় বক্তরা, ফরিদগঞ্জ পৌরসভা কর্তৃক পৌর এলাকা চালিত ইজি বাইক ও ব্যাটারী চালিত রিক্সা রেজিষ্ট্রেশন অতিরিক্ত ফি বৃদ্ধি প্রত্যাহারসহ তাদের ৫ দফা দাবী সরকার ও কর্তৃপক্ষকে মেনে নেওয়ার আহ্বান করেন। পরে, তারা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে পৌর এলাকার প্রদান সড়ক গুলো প্রদক্ষিণ করে। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ফরিদগঞ্জ পৌরসভা কর্তৃক ব্যাটারি চালিত রিক্সা ও ইজি বাইক নিবন্ধনে অযৌক্তিক ও অস্বাভাবিক ফি প্রত্যাহার করতে হবে। অটোরিক্সার লাইসেন্সের যে ফি নির্ধারণ করা হয়েছে, তা আশে পাশের পৌরসভা গুলোর সাথে কোন মিল নেই। পাশ্ববর্তি প্রথম শ্রেনীর পৌরসভা গুলোতে অটোরিক্সার লাইসেন্সের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে মাত্র ৪ থেকে ৬ হাজার টাকার মধ্যে। আমাদের ফরিদগঞ্জ পৌরসভা ২য় শ্রেনীর একটি পৌরসভায় ট্যাক্সসহ সাড়ে ১৪ হাজার টাকা লাইসেন্স ফি কি ভাবে হয় তা আমাদের বোধ গম্য নই। আমরা পরিমনি পাপিয়াদের মত বিলাসী জীবন চাইনা, পরিবার পরিজন নিয়ে দু’মুঠো খাবার খেয়ে বাচঁতে চাই, অবিলম্ববে আমাদের দাবী মেনে নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আমাদের রুটি রোজগার করে বাঁচার সুযোগ দিন। পৌরসভার বিভিন্ন সড়ক মেরামত করে যানবাহন চলাচলের উপযোগী করে গড়ে তলোসহ বিভিন্ন বিষয়ে বক্তারা বক্তব্য পেশ করেন। বিষয়টি নিয়ে পৌরসভার মেয়র যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের পাটওয়ারী বলেন, যানবহনের লাইসেন্স করা বাধ্যতা মূলক, সেই মোতাবেক পৌরকর্তৃপক্ষ লাইসেন্স করার নিদের্শনা দিয়েছে, যানবাহন পরিচালনা করলে লাইসেন্স তো লাগবেই। মানববন্ধনকারীদের যে অভিযোগ, তারা আমাকে কিছু জানাই নি। তারা আমার কাছেকোন আবেদন করেনি, তাই এ বিষয়ে আমি কিছ্ইু জানিনা।

Share This post