গাজী মমিন, ফরিদগঞ্জ:
চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর আওতাধীন ফরিদগঞ্জ জোনাল অফিস এরিয়ায় একটি বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মিটার সংযোগ চলমান থাকলেও অফিস থেকে বিলের কপি দেওয়া হয়না। আর এমন অবস্থায়ই মাসেরপর মাস বিদ্যুৎ ব্যবহার করে গেলে প্রাহক বিলের কাগজ না পাওয়ায় বিপাকে রয়েছে বলে জানাগেছে। এ নিয়ে ফরিদগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি অফিসে কার্যত হযবরল অবস্থা বিরাজ করছে বলে মনে করছে স্থায়ীয় সচেতন মহল।
এর আগে উপজেলা পরিশ্চম গাব্দেরগাঁও গ্রামের খোকন পাটওয়ারীর বসত বাড়িতে নকল মিটারে বিদ্যুৎ ব্যবহার করার প্রকাশ হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ওই বাড়িতে পল্লী বিদ্যুতের নির্ধারিত মিটার না দিয়ে সেই বাড়ির সংযোগ কেটে দিয়েছে। সরকার যেখানে শতভাগ বিদ্যুৎ দেয়ার ঘোষনা দিয়েছে। সরকারের সিদ্ধান্তকে তোয়াক্কা না করে ওই বাড়ির বিদ্যুৎ সরবরাহ বিচ্ছিন্ন করায় জনমনে ক্ষোভ বাড়ছে।
এ ছাড়াও বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে অনেকেই ১০০ টাকা ফি দিয়ে আবেদন করারপর বর্তমান ডিজিএম তার ক্ষমতার প্রভাবে ওই আবেদন বাতিল করেন । সংযোগের আবেদন বাবৎ প্রদানকৃত শত-শত গ্রাহকে ওই টাকা ফেরত দেয়ার কোন উদ্যোগ না নেয়ায় ডিজিএমের বিরুদ্ধে গ্রাহকরা ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে। বিদ্যুতের সংযোগ পেতে পুনরায় অনলাইনে আবেদন করার অজুহাত দেখিয়ে পূর্বের আবেদন বাতিল করে দেয় ডিজিএম।
খোজ নিয়ে জানা গেছে, ফরিদগঞ্জ পৌর এলাকার পশ্চিম বড়ালী গ্রামের মৃত মৃসলিম পাটওয়ারীর ছেলে ফারুকের বাড়িতে গত প্রায় এক বছর আগে পল্লী বিদ্যুতের নির্ধারিত মিটার সংযোগের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে আসছিল। কিন্তু ওই মিটার সংযোগের পর এক বছরেও বিদ্যুৎ ব্যবহারের কোন বিলের কাগজ পাচ্ছে না গ্রাহক । বিলের কাগজ পেতে বহুবার পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে ধর্না দিয়েও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি। একই গ্রামের ইয়াছিন তালুকদারের ছেলে নজির আহাম্মেদের নামের একজন ব্যবসায়ীর দোকানে গত প্রায় ৭ মাস পূর্বে মিটার সংযোগ দিলে বিদ্যুৎ ব্যবহারের কোন বিলের কাগজ পায়নি ওই ব্যবসায়ী।
সরেজমিনে উল্লেখিত দু’টি মিটারের গ্রাহকগণ জানিয়েছেন, আমরা পল্লী বিদ্যুতের ছায়াতলে আসতে পেরে অনেক খুশি। তবে মাসে মাসে বিদ্যুৎ বিল দিতে অনেকবার অফিসে গিয়েও কোন কাজ হয়নি।
এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম নুরুল হোসাইনের বক্তব্য নিতে মোবাইল ফোনে কল দিলে ফোন রিসিভ করেনি।
ডিজিএমকে ফোনে না পেয়ে ওই অফিসের জিএম দেব কুমার মালের সাথে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি জানান, গ্রাহকের যে কোন সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা সার্বক্ষনিক প্রস্তুত থাকি। তথ্য উপাত্ত পেলে অবশ্যই গ্রাহকের স্বার্থে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, ত্রুটি থাকলে যে কোন আবেদন বাতিল হতে পারে। কিন্তু ত্রুটি না থাকলে কোন আবেদনই বাতিল করার কোন নির্দেশনা সরকারি ভাবে নেই।

Share This post