বিশেষ প্রতিনিধি:

সারাদেশে করোনা ডেডিকেটেড হিসেবে ঘোষিত ৩০টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালের ৭৬ শতাংশ শয্যাই খালি পড়ে রয়েছে। অর্থাৎ মাত্র ২৪ শতাংশ শয্যাতে রোগী ভর্তি রয়েছেন। স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তির পরিসংখ্যান বিশ্লেষণে এ তথ্য জানা গেছে।

বর্তমানে সারাদেশে ৩০টি করোনা হাসপাতালে ১৪হাজার ২৭৫টি সাধারণ শয্যা এবং ৫৪৭টি আইসিইউ শয্যাসহ সর্বমোট শয্যা সংখ্যা ১৪ হাজার ৮২২টি। বর্তমানে রোগী ভর্তি রয়েছেন মাত্র ৩ হাজার ৪৯০ জন। শয্যা খালি রয়েছে ১১ হাজার ২৮৪টি।

সারাদেশের মোট শয্যার মধ্যে রাজধানীর ২১টি হাসপাতালে সাধারণ শয্যা ৬ হাজার ১০৭টি এবং আইসিইউতে শয্যা ৩০৭টি। বর্তমানে রাজধানীতে সাধারণ শয্যায় এক হাজার ৯২৯ জন ও আইসিইউতে ১৮৩জন রোগী ভর্তি আছেন।

বন্দরনগর চট্টগ্রামের ৯টি হাসপাতালে সাধারণ শয্যা ৭৮২টি এবং আইসিইউ ৩৯টি। এখানে সাধারণ শয্যায় ১৬৫ জন ও আইসিইউতে ১৪ জন রোগী ভর্তি আছেন।

দেশের অন্যান্য হাসপাতালে সাধারণ শয্যা ৭ হাজার ৩৮৬টি এবং আইসিইউতে শয্যা ২০১টি। বর্তমানে সাধারণ শয্যায় এক হাজার ১০১ জন ও আইসিইউতে ৯৮ জন রোগী ভর্তি আছেন।

উল্লেখ্য, সারাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে আরও ২৬ জন মারা গেছেন। এদের মধ্যে পুরুষ ২২ ও নারী ৪ জন। এর মধ্যে হাসপাতালে ২৫ জন ও বাড়িতে একজনের মৃত্যু হয়। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল চার হাজার ৭৫৯ জনে।

করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯৪টি করোনা পরীক্ষাগারে ১৩ হাজার ৮৪৭টি নমুনা সংগ্রহ হয়। পরীক্ষা হয়েছে- ১৪ হাজার ২১৬টি। একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন আরও এক হাজার ৮১২ জন। ফলে দেশে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল তিন লাখ ৩৯ হাজার ৩৩২ জনে। এ পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭ লাখ ৪২ হাজার ৬৯৬টি।

Share This post