কচুয়া: কচুয়া ২০ বছরেও এমপিওভুক্ত হয়নি কোয়া চাঁদপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার।

জিসান আহমেদ নান্নু, কচুয়া ॥
দীর্ঘ ২০ বছরে ও এমপিও ভুক্ত না হওয়ায় সীমাহীন দুর্ভোগ ও কষ্টের বোঝা মাথায় নিয়ে চলছে কচুয়া পৌরসভাধীন ২নং ওয়ার্ডে অবস্থিত কোয়া চাঁদপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষা কার্যক্রম। প্রতি বছর দাখিল, জেডিসি ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় শতভাগসহ সন্তোষজন ফলাফল অর্জন করে আসছে । সদ্য প্রকাশিত দাখিল পরীক্ষা ফলাফল প্রকাশিত হয় গত (৩১ মে) কোয়া-চাঁদপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার দাখিল পরীক্ষা ভালো ফলাফল অর্জ করে শিক্ষার্থীরা। মাদ্রাসাটি এমপিওভুক্ত করণের স্বপ্ন নিয়ে বার বার ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন শিক্ষক, কর্মচারী ও মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটি।
জানা গেছে,বিগত ২০০০ সালের ১ জানুয়ারী কোয়া-চাঁদপুর গ্রামের অধিবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শিক্ষা অধিদফতর কুমিল্লা অঞ্চলের সাবেক উপ-পরিচালক মরহুম আমিনুল হক এ মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠা করেন। এ মাদ্রাসায় বর্তমানে প্রায় ৫০ শতাংশ ভূমি থাকলেও ক্লাস চলার মতো কোন একাডেমিক ভবন না থাকায় সমস্যার মধ্য দিয়ে পাঠদান চলছে। এছাড়া স্থায়ী শিক্ষক, নতুন একাডেমিক ভবন, শৌচাগার ও আসবাবপত্রের অভাবে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম।
মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সুপার মো. ইয়াকুব আলী জানান, প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই আমি ও অন্যান্য শিক্ষক-কর্মচারীগণ মাদ্রাসায় কর্মরত রয়েছি। বর্তমানে মাদ্রাসাটি এমপিওভুক্ত না হওয়ায় স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে অতি কষ্টে খেয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি। আমাদের দুঃখ কষ্ট দেখার যেন কেউ নেই। মাদ্রাসাটিতে বর্তমানে ১৩জন শিক্ষক, ৩ কর্মচারী ও প্রায় ৪ শতাধিক শিক্ষার্থী রয়েছে। শিক্ষার্থীদের শ্রেণীক না থাকায় বাধ্য হয়ে কখনো বারান্দায়, কখনো বা খোলা আকাশের নিচে পাঠদান করানো হচ্ছে। বিশেষ করে ভালো ফলাফল করা শর্তেও এমপিভূক্ত না হওয়ায় শিক্ষকরা অতি কষ্টে জীবন যাপন করে আসছে।
মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি, পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বিশিষ্ট সমাজ সেবক মো. জামাল হোসেন রাজু জানান, কোয়া-চাঁদপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসাটি এমপিও ভুক্ত করণ করা এখন সময়ের দাবি। এলাকাবাসির দাবির প্রেক্ষিতে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও কচুয়া উন্নয়নের রূপকার ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি সার্বিক সহযোগীতায় সরকারি ৩ কোটি ২৬ লক্ষ্য ব্যায় মাদ্রাসার ৪ তলা বিশিষ্ট নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে তবে দেশের মহামারি করোনা ভাইরাসের কারনে শ্রমিক না থাকায় কাজ সাময়িক ভাবে বন্ধ রয়েছে। আশাকরি কিছু দিন পর নির্র্মান কাজ শুরু হবে। তবে তার চাইতে বড় কথা সকলের দাবি একটাই মাদ্রাসাটি দ্রুত মানবিক বিবেচনা করে এমপিওভূক্ত করন।

 

Share This post