নিজস্ব প্রতিনিধি :
হাজীগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৮১.৪১ এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৩৭ জন। এর মধ্যে ৩৩ জিপিএ-৫ নিয়ে উপজেলায় প্রথম হয়েছে হাজীগঞ্জ সরকারি মডেল পাইলট হাই স্কুল এন্ড কলেজ, ২৬ জিপিএ-৫ নিয়ে দ্বিতীয় হাজীগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং ১২ জিপিএ-৫ নিয়ে তৃতীয় হয়েছে হাজীগঞ্জ আমিন মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়।
এ বছর উপজেলার ৩২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ৪৩৩৪ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৩৫১২ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৮০২ জন । পাশের হার শতকরা ৮১.৪১। যার মধ্যে জিপিএ-৫ (এ+) পেয়েছে ১৩৭, এ ৮৪৬, এ মাইনাস ৭৫৪, বি ৮৮০, সি ৮৬৮ এবং ডি গ্রেড পেয়েছে ২৭ জন পরীক্ষার্থী। উপজেলায় শতভাগ পাশ নেই কোন প্রতিষ্ঠানের।
জিপিএ-৫ এর দিক থেকে উপজেলা প্রথম হয়েছে, হাজীগঞ্জ সরকারি মডেল পাইলট হাই স্কুল এন্ড কলেজ। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ৩৫১ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৩১৭ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৩৪ জন। পাশের হার শতকরা ৯০.৩১ । যার মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৩ জন, এ ৯৬, এ মাইনাস ৭৫, বি ৫৯ ও সি গ্রেড পেয়েছে ৫৪ জন পরীক্ষার্থী।
জিপিএ-৫ এর দিক থেকে উপজেলা দ্বিতীয় হয়েছে, হাজীগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ২৩৩ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ২৩০ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৩ জন। পাশের হার শতকরা ৯৮.৭১। যার মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৬ জন, এ ৯৩, এ মাইনাস ৩৭, বি ৫৩ ও সি গ্রেড পেয়েছে ২১ জন পরীক্ষার্থী।
জিপিএ-৫ এর দিক থেকে উপজেলা তৃতীয় হয়েছে, হাজীগঞ্জ আমিন মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ২৭৭ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ২৪৬ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৩১ জন। পাশের হার শতকরা ৮৯.১৩। যার মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১২ জন, এ ৫৩, এ মাইনাস ৪২, বি ৫৫ ও সি গ্রেড পেয়েছে ৮৪ জন পরীক্ষার্থী।
এ ছাড়াও উপজেলায় কোন প্রতিষ্ঠান শতভাগ পাশ না করলেও পাশের হারে প্রথম ধড্ডা পপুলার উচ্চ বিদ্যালয়। এ প্রতিষ্টান থেকে ১১২ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ১১১ জন। পাশের হার শতকরা ৯৯.১১। যার মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ জন, এ ৪৬, এ মাইনাস ২৮, বি ২৬ ও সি গ্রেড পেয়েছে ৮ জন পরীক্ষার্থী।
দাখিল ঃ হাজীগঞ্জে দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৮ জন। এ বছর উপজেলার ২৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ১১৫৪ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৯৪২ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ১২২ জন । পাশের হার শতকরা ৮১.৬৩। যার মধ্যে জিপিএ-৫ (এ+) পেয়েছে ৩৮, এ ২৯০, এ মাইনাস ২৫০, বি ২১৭, সি ১৪৫ এবং ডি গ্রেড পেয়েছে ২ জন পরীক্ষার্থী।
শতভাগ পাশ করার গৌরব অর্জন করেছে হাজেরা আলী ক্যাডেট মাদরাসা এবং আলী আহমেদ ইসলামিয়া একাডেমিক দাখিল মাদরাসা। হাজেরা আলী ক্যাডেট দাখিল মাদরাসার ৩৫ পরীক্ষার্থীর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ জন, এ ২১, এ মাইনাস ১১ এবং বি গ্রেড পেয়েছে ২ জন। আলী আহমেদ ইসলামিয়া একাডেমিক দাখিল মাদরাসার ২১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ জন, এ ৭, এ মাইনাস ১১ এবং বি গ্রেড পেয়েছে ২ জন।
অপর দিকে জিপিএ-৫ এর দিক থেকে উপজেলায় সেরা নওহাটা ফাজিল মাদরাসা। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ৮০ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৭৭ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৩ জন। পাশের হার শতকরা ৯৬.২৫ । যার মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০ জন, এ ৪৭, এ মাইনাস ১০, বি ৭ ও সি গ্রেড পেয়েছে ৩ জন পরীক্ষার্থী।
দ্বিতীয় হাজীগঞ্জ আহমাদিয়া কামিল মাদরাসা। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ৭০ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৬৭। অকৃতকার্য হয়েছে ৩ জন। পাশের হার শতকরা ৯৫.১৭ । যার মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭ জন, এ ২৪, এ মাইনাস ২১, বি ৯ ও সি গ্রেড পেয়েছে ৫৬ জন পরীক্ষার্থী।
ভোকেশনালঃ হাজীগঞ্জে এসএসসি ভোকেশনাল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯ জন। এ উপজেলার ৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ২৯৭ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ২৫৫ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৪২ জন । পাশের হার শতকরা ৭২.২৪। যার মধ্যে জিপিএ-৫ (এ+) পেয়েছে ৯ জন, এ ২১৪ এবং এ মাইনাস পেয়েছে ৩২ জন পরীক্ষার্থী।
হাজীগঞ্জ সরকারি মডেল পাইলট হাই স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ৭৬ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৬২ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ১৪ জন। নেই জিপিএ-৫। পাশের হার শতকরা ৮১.৫৮। এর মধ্যে এ গ্রেড পেয়েছে ৫৯ জন ও এ মাইনাস পেয়েছে ০৩ জন পরীক্ষার্থী।
হাজীগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭২ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৭০ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ২ জন। পাশের হার শতকরা ৯৭.২২। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ জন, এ গ্রেড ৬২ ও এ মাইনাস পেয়েছে ৪ জন পরীক্ষার্থী।
বলাখাল জেএন উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কারিঘরি কলেজ থেকে ৯২ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৮৩ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ৯ জন। পাশের হার শতকরা ৯০.২১ । এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ জন, এ গ্রেড ৬৫ ও এ মাইনাস পেয়েছে ১৬ জন পরীক্ষার্থী।
হাজীগঞ্জ আমিন মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫৭ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করেছে ৪০ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ১৭ জন। পাশের হার শতকরা ৭০.১৮ । এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ জন, এ গ্রেড ২৮ ও এ মাইনাস পেয়েছে ৯ জন পরীক্ষার্থী।

Share This post